স্ট্রোকের ঝুঁকিতে কারা আছেন?

স্ট্রোকের ঝুঁকিতে কারা আছেন. স্ট্রোক, যাকে কখনো কখনো ব্রেন অ্যাটাক ও বলা হয়, তখন ঘটে যখন মস্তিষ্কের কিছু অংশে রক্ত সরবরাহ বন্ধ হয় বা যখন মস্তিষ্কের একটি রক্তনালী ফেটে যায়। উভয় ক্ষেত্রেই, মস্তিষ্কের অংশগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা মারা যায়। স্ট্রোক দীর্ঘস্থায়ী মস্তিষ্কের ক্ষতি, দীর্ঘমেয়াদী অক্ষমতা বা এমনকি মৃত্যুর কারণ পর্যন্ত হতে পারে।

স্ট্রোকের ঝুঁকিতে কারা আছেন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) স্ট্রোককে ‘অনুমানিত ভাস্কুলার উৎসের এবং ২৪ ঘন্টার বেশি সময়কালের সেরিব্রাল ফাংশনগুলোর ফোকাল ব্যাঘাতের একটি দ্রুত বিকশিত ক্লিনিকাল লক্ষণ’ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করে।

স্ট্রোকের সময় মস্তিষ্কে কী ঘটে?

মস্তিষ্ক আমাদের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণ করে, আমাদের স্মৃতি সঞ্চয় করে এবং আমাদের চিন্তা, আবেগ এবং ভাষার উৎস। মস্তিষ্ক শরীরের অনেক কাজ নিয়ন্ত্রণ করে, যেমন শ্বাস এবং হজম। সঠিকভাবে কাজ করার জন্য, মস্তিষ্কের অক্সিজেন প্রয়োজন। ধমনী মস্তিষ্কের সমস্ত অংশে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত সরবরাহ করে। রক্ত প্রবাহে বাধা দেওয়ার জন্য কিছু ঘটলে, মস্তিষ্কের কোষগুলো কয়েক মিনিটের মধ্যে মারা যেতে শুরু করে, কারণ তারা অক্সিজেন পেতে পারে না। এর ফলে স্ট্রোক হয়। মিনিস্কাস ইনজুরি

স্ট্রোকের প্রকারভেদ

ইস্কেমিক স্ট্রোক

এটি সবচেয়ে সাধারণ ধরনের স্ট্রোক। ইস্কেমিক স্ট্রোক ঘটে যখন মস্তিষ্কের একটি ধমনী অবরুদ্ধ হয়। সবচেয়ে সাধারণ হল মিডল সেরিব্রাল ধমনী, তারপর পোস্টেরিয়র সেরিব্রাল ধমনী এবং সবশেষে এন্টেরিয়র সেরিব্রাল ধমনী । প্রায় ৮০ শতাংশ স্ট্রোকই ইস্কেমিক ধরণের হয়। যদি ধমনী কয়েক মিনিটের বেশি অবরুদ্ধ থাকে, তাহলে মস্তিষ্কের কোষগুলো মারা যেতে থাকে। স্ট্রোকের ঝুঁকিতে কারা আছেন

  • ইস্কেমিক স্ট্রোক এক বা একাধিক সেরিব্রাল ধমনীতে অক্লুশন বা বাধার কারণে হয়ে থাকে।
  • এম্বোলি বা এথেরোমার কারণে ধমনীতে রক্তপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ হয়।
  • প্রধান সেরিব্রাল ধমনীতে (মিডল, পোস্টেরিয়োর ও অ্যান্টেরিয়োর) অক্লুশন ঘটে।
  • এর প্রধান উপসর্গের মধ্যে থাকে – বিপরীত পার্শ্বীয় হেমিপ্লেজিয়া, হেমি-সেন্সরি লস, হোমোনিমাস হেমিয়ানোপিয়া, প্রোপ্রিওসেপশন লস ইত্যাদি। রোগী মাথাব্যথার অভিযোগ করে থাকে।
  • ইস্কেমিক স্ট্রোকের আকস্মিক সূত্রপাত ঘটে।
  • এই স্ট্রোক এত মারাত্মক নয়।
  • দ্বিতীয় স্ট্রোকের জন্য কম সুযোগ থাকে।
  • সবচেয়ে সাধারণ প্রকার (সমস্ত স্ট্রোকের প্রায় ৮০ শতাংশ)

হেমোরেজিক স্ট্রোক

মস্তিষ্কের একটি ধমনী ফেটে গেলে রক্তক্ষরণজনিত বা হেমোরেজিক স্ট্রোক হয়। এক্ষেত্রে রক্ত আশেপাশের টিস্যুতে চলে যায় এবং শুধুমাত্র রক্তের সরবরাহই বিপর্যস্ত করে না, পাশাপাশি সূক্ষ্ম রাসায়নিক ভারসাম্যতেও ব্যাপক তারতম্য ঘটায়, যা নিউরনের কাজ করার জন্য প্রয়োজন। স্ট্রোকের ঝুঁকিতে কারা আছেন

  • মস্তিষ্কের মধ্যে রক্তনালী ফেটে যাওয়ার কারণে হেমোরেজিক স্ট্রোক হয়।
  • উচ্চ রক্তচাপের কারণে রক্তনালী ফেটে যেতে পারে।
  • হেমাটোমা মস্তিষ্কের গভীর অংশে বেসাল গ্যাংলিয়া, এক্সটার্নাল ক্যাপসুল বেশি হয়ে থাকে। পনস সেরিবেলাম এবং সেরিব্রাল হোয়াইট ম্যাটার এ তুলনামূলক কম দেখা যায়।
  • প্রচন্ড মাথাব্যথা, বমি বমি ভাব, বমি করা, অচেতন হয়ে পড়া, ঘাড় শক্ত হয়ে যাওয়া – হেমোরেজিক স্ট্রোকের প্রধান উপসর্গসমূহ।
  • এর অন্যান্য উপসর্গের মধ্যে আছে – বিপরীত পার্শ্বীয় হেমিপ্লেজিয়া, পেরিফেরাল মুখের দুর্বলতা এবং গেইট, অঙ্গ বা ট্রাংকের অ্যাটাক্সিয়া, পর্যায়ক্রমিক শ্বাস-প্রশ্বাস, হেমি সেনসরি ক্ষয় ইত্যাদি।
  • হেমোরেজিক স্ট্রোক ধীরে ধীরে শুরু হয়।
  • স্ট্রোকের প্রকারভেদের মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক।
  • দ্বিতীয় স্ট্রোকের সম্ভাবনা থাকে।
  • কম সাধারণ (সমস্ত স্ট্রোকের ২০ শতাংশ)

সাবএরাকনয়েড হেমোরেজ

একটি সাবএরাকনয়েড হেমোরেজ হলো এক ধরণের স্ট্রোক যা হঠাৎ ধমনী ফেটে যাওয়ার কারণে ঘটে। এটি মস্তিষ্কের গোড়ায় অবস্থিত ধমনীর অস্বাভাবিকতার কারণে ঘটে, যাকে সেরিব্রাল অ্যানিউরিজম বলা হয়।

*ইন্ট্রাসেরিব্রাল হেমোরেজ

ইন্ট্রাসেরিব্রাল হেমোরেজ হল এক ধরণের স্ট্রোক যা মস্তিষ্কের মধ্যে হঠাৎ করে একটি ধমনী ফেটে যাওয়ার কারণে ঘটে।

স্ট্রোকের ঝুঁকির কারণ

১. পরিবর্তনযোগ্য নয়:

* বয়স,

* লিঙ্গ,

* পারিবারিক ইতিহাস,

* জাতি,

* পূর্ববর্তী স্ট্রোক এর ইতিহাস বা ট্রানজিয়েন্ট ইশকেমিক অ্যাটাক হয়েছে ইত্যাদি।

২. পরিবর্তনযোগ্য:

* উচ্চ রক্তচাপ (উচ্চ রক্তচাপ),

* ডায়াবেটিস মেলিটাস,

* হৃদরোগ,

* উচ্চ কোলেস্টেরল,

* তামাক ধূমপান,

* স্থূলতা/অতিরিক্ত ওজন,

* অ্যালকোহল গ্রহণ ইত্যাদি।

পরিবর্তনযোগ্য নয় এমন ঝুঁকির কারণগুলো নিয়ে আলোকপাত প্রয়োজন। যেসব ঝুঁকির কারণগুলো আমাদের হাতে নেই, সেগুলোর জন্য প্রতিরোধ ব্যবস্থাই সর্বোত্তম।

* বয়স: যাদের বয়স ৬৫ বছরের বেশি, তাদের হৃদরোগে আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি থাকে। ফলস্বরূপ তাদের স্ট্রোকের ঝুঁকিও বেশি থাকে।

* ইস্কেমিক হার্ট ডিজিজ (আইএইচডি): ইস্কেমিক হার্ট ডিজিজ দ্বারা স্ট্রোকের বিকাশের ক্রম হল:

১. হৃৎপিণ্ড থেকে এম্বুলাস

২. মস্তিষ্কের মাধ্যমে ক্যারোটিড ধমনী

৩. এম্বোলাস দ্বারা সেরিব্রাল ধমনীতে বাধা

৪. মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহ হ্রাস

৫. ইস্কেমিক স্ট্রোক।

* ডায়াবেটিস: ডায়াবেটিস মেলিটাস থেকে স্ট্রোক হওয়ার ক্রম হল:

১. ধমনীর দেয়ালে চর্বি জমা হওয়া

২. অনমনীয় ধমনীর প্রাচীর / প্রাচীরের পুরুত্ব বৃদ্ধি

৩. রক্তচাপ বৃদ্ধি

৪. স্ট্রোক।

* তামাক ধূমপান:

নিকোটিন শক্তিশালী অস্থি মজ্জা উদ্দীপক। তামাক ধুমপানের কারণে স্ট্রোক যেভাবে হয়:

১. লোহিত রক্ত কণিকা এর উৎপাদন বৃদ্ধি করে  

২. রক্তের সান্দ্রতা বাড়ায়

৩. রক্ত জমাট বাঁধা

৪. এমবোলিজম

৫.  সেরিব্রাল ধমনীতে বাধা

৬. স্ট্রোক

ধূমপান স্ট্রোকের ঝুঁকি দ্বিগুণ করে।

* লিঙ্গ: স্ট্রোক সাধারণত পুরুষদের মধ্যে  ঘটে কারণ তারা ধূমপানে অভ্যস্ত, উচ্চ রক্তচাপের উপস্থিতি ইত্যাদি কিন্তু মহিলারা সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়, যারা গর্ভনিরোধক পিল গ্রহণ করে। সিগারেট ধূমপানের মাধ্যমে স্ট্রোকের প্রক্রিয়া উপরে বর্ণিত হয়েছে এবং মহিলাদের মধ্যে স্ট্রোকের বিকাশ নীচে দেওয়া হয়েছে:

১. গর্ভনিরোধক বড়ি ধমনীর দেয়ালে চর্বি জমাতে সাহায্য করে  

২. ধমনীর দেয়ালের পুরুত্ব বাড়ায়

৩. রক্তচাপ বাড়ায়

৪. স্ট্রোক।

* উচ্চ রক্তচাপ (হাইপারটেনশন): উচ্চ রক্তচাপের কারণে স্ট্রোক হবার প্রক্রিয়া হলো:

১. উচ্চ রক্তচাপ

২. ধমনীর দেয়ালের বিরুদ্ধে আমাদের রক্তের চাপ বাড়ায়

৩. হৃৎপিণ্ডকে শরীরে রক্ত সঞ্চালনের জন্য শক্ত পাম্প করতে হয়

৪. রক্তনালী দুর্বল হয়ে যায়

৫. মস্তিষ্কের মতো প্রধান অঙ্গগুলির ক্ষতি করে

৬. স্ট্রোক

* অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশন

 অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশন স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায় কারণ

১. এটি হৃৎপিণ্ডে রক্ত পুল করতে দেয়

২. এটি জমাট বাঁধার প্রবণতা রাখে যা পরে মস্তিষ্কে নিয়ে যেতে পারে

৩. স্ট্রোকের সূচনা করে

* অ্যালকোহল গ্রহণ:

১. প্রচুর পরিমাণে অ্যালকোহল পান করা

২. রক্তচাপ বৃদ্ধি করে

৩.  স্ট্রোকের ঝুঁকি ৫০ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়।

* স্থূলতা/অতিরিক্ত ওজন: অতিরিক্ত ওজন মানুষের উচ্চ কোলেস্টেরল থাকার সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে; উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিস- এগুলো আপনার স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।

রোগ নির্ণয়

স্ট্রোক সন্দেহ হলে, মস্তিষ্কের টিস্যুর ক্ষতি কমানোর জন্য দ্রুত, সঠিক রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা প্রয়োজন। রোগ নির্ণয়ের মধ্যে রয়েছে একটি মেডিকেল ইতিহাস এবং একটি শারীরিক পরীক্ষা সহ চেতনা, সংবেদন, এবং ফাংশনের স্তর (ভিজ্যুয়াল, মোটর, ভাষা) মূল্যায়ন করার জন্য এবং স্ট্রোকের কারণ, অবস্থান এবং মাত্রা নির্ধারণের জন্য স্নায়বিক পরীক্ষা।

শারীরিক পরীক্ষার মধ্যে শ্বাসনালী, শ্বাস-প্রশ্বাস এবং সঞ্চালনএবং গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ (যেমন, নাড়ি, শ্বাস-প্রশ্বাস এবং তাপমাত্রা) মূল্যায়ন অন্তর্ভুক্ত থাকে। মাথা (কান, চোখ, নাক এবং গলা সহ) এবং অঙ্গপ্রত্যঙ্গগুলোও স্ট্রোকের কারণ নির্ধারণে সহায়তা করার জন্য পরীক্ষা করা হয়।

রক্ত পরীক্ষা

(যেমন, সম্পূর্ণ রক্তের গণনা) এবং ইমেজিং পদ্ধতি (যেমন, সিটি স্ক্যান, আল্ট্রাসাউন্ড, এমআরআই) চিকিৎসককে স্ট্রোকের ধরন নির্ধারণ করতে এবং সংক্রমণ ও মস্তিষ্কের টিউমারের মতো অন্যান্য অবস্থাকে বাতিল করতে সাহায্য করে।

ফার্মাকোথেরাপি

ইস্কেমিক স্ট্রোকের ব্যবস্থাপনা:

নির্দিষ্ট ইনফার্কশনের ক্ষেত্রে, থেরাপির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য হল স্ট্রোকের অবনতি রোধ করা, ইডিমা হ্রাস করা এবং দ্বিতীয় স্ট্রোক প্রতিরোধ করা। এর জন্য ৩টি প্রধান বিকল্প রয়েছে-

* অ্যান্টি-কোয়াগুল্যান্ট থেরাপি- হেপারিন, ওয়ারফারিন।

* অ্যান্টিপ্লেটলেট এজেন্ট- অ্যাসপিরিন, টিক্লোপিডিন।

* ক্যারোটিড এন্ডার্টারেক্টমি (নিম্ন প্রবাহ বা এম্বোলিক টিআইএ বা ছোট স্ট্রোক হওয়া রোগীদের জন্য নির্দেশিত)

* অন্যান্য- ভাসোডায়ালেটর (ভিনপোসেটাইন), এন্টি এডিমা থেরাপি, থ্রম্বোলাইটিক থেরাপি (স্ট্রেপ্টোকিনেস, ইউরোকিনেস) ইত্যাদি।

হেমোরেজিক স্ট্রোকের ব্যবস্থাপনা:

ইন্ট্রাসেরিব্রাল হেমোরেজ: অ্যান্টিইডিমা থেরাপি এবং অ্যান্টি-ফাইব্রিনোলাইটিক এজেন্ট। ইনফ্রা-টেন্টোরিয়াল দ্বারা ক্লট অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচার ব্যবস্থাপনা করা হয় যেমন:  পন্টাইন হেমাটোমা, যা আকারে ৩ সেন্টিমিটারের বড়।

সাব-অ্যারাকনয়েড হেমোরেজ:

তিন সপ্তাহের জন্য সম্পূর্ণ বিছানা বিশ্রাম, মাথাব্যথার জন্য অ্যান্টিফাইব্রিনোলাইটিক এজেন্ট হালকা ব্যথানাশক, ক্যালসিয়াম চ্যানেল ব্লকার ইত্যাদি।

অন্যান্য চিকিৎসার পাশাপাশি স্ট্রোক রোগীর পুনর্বাসনে ফিজিওথেরাপি খুবই গুরুত্ববহ।

তথ্যসূত্র

  1. Samsa, G.P., Cohen, S.J., Goldstein, L.B., Bonito, A.J., Duncan, P.W., Enarson, C., DeFriese, G.H., Horner, R.D. and Matchar, D.B., 1997. Knowledge of risk among patients at increased risk for stroke. Stroke28(5), pp.916-921. https://www.ahajournals.org/doi/abs/10.1161/01.str.28.5.916
  2. Grau, A.J., Urbanek, C. and Palm, F., 2010. Common infections and the risk of stroke. Nature Reviews Neurology6(12), pp.681-694. https://www.nature.com/articles/nrneurol.2010.163
  3. Kurth, T., Moore, S.C., Gaziano, J.M., Kase, C.S., Stampfer, M.J., Berger, K. and Buring, J.E., 2006. Healthy lifestyle and the risk of stroke in women. Archives of internal medicine166(13), pp.1403-1409. https://jamanetwork.com/journals/jamainternalmedicine/article-abstract/410598
  4. Abbott, R.D., Yin, Y., Reed, D.M. and Yano, K., 1986. Risk of stroke in male cigarette smokers. New England journal of medicine315(12), pp.717-720. https://www.nejm.org/doi/full/10.1056/NEJM198609183151201
Follow me
Sep 06, 2022

হিপ ব্যথা

হিপ ব্যথা কি? হিপ ব্যথা হল হিপ জয়েন্টে বা তার চারপাশে অস্বস্তির…
পরামর্শ নিতে 01877733322