fbpx

মেনিনজাইটিস হল মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের চারপাশে অবস্থিত মেমব্রেন বা ঝিল্লির (মেনিনজেস) প্রদাহ। মেনিনজাইটিস থেকে হওয়া ফোলা সাধারণত মাথাব্যথা, জ্বর এবং ঘাড় শক্ত হওয়ার মতো লক্ষণ প্রকাশ করে।

মেনিনজেস হল মেমব্রেনের সিস্টেম, যা কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে আবৃত করে রাখে। এটির তিনটি স্তর রয়েছে, যথাক্রমে ডুরা ম্যাটার, অ্যারাকনয়েড ম্যাটার এবং পায়া ম্যাটার। সাবরাচনয়েড স্পেস হল সেই স্থান যা অ্যারাকনয়েড এবং পায়া ম্যাটারের মধ্যে বিদ্যমান এবং যা সেরিব্রোস্পাইনাল ফ্লুইডে পূর্ণ থাকে।

মেনিনজাইটিসের কারণ

১. ভাইরাল জনিত সংক্রমণ মেনিনজাইটিসের সবচেয়ে সাধারণ কারণ

২. ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ দ্বারা অনুসরণ

৩. কদাচিৎ, ছত্রাক দ্বারা সংক্রমণ।

৪. মেনিনজাইটিস অসংক্রামক কারণেও হতে পারে, যেমন রাসায়নিক বিক্রিয়া, ওষুধের অ্যালার্জি, কিছু ধরণের ক্যান্সার এবং সুনির্দিষ্ট প্রদাহজনিত রোগ যেমন সারকয়ডোসিস।

মেনিনজাইটিসের প্রকারভেদ

* ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস

* ভাইরাল মেনিনজাইটিস

* ক্রনিক মেনিনজাইটিস

* ফাংগাল বা ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিস

* প্যারাসাইটিক বা পরজীবী মেনিনজাইটিস

* অ্যামেবিক মেনিনজাইটিস

ব্যাকটেরিয়াল-মেনিনজাইটিসের-লক্ষণ

ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস

বেশ কিছু ব্যাকটেরিয়া রক্ত প্রবাহে প্রবেশ করে, তারপর মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডে ভ্রমণ করে অ্যাকিউট ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস এর সৃষ্টি করে। পাশাপাশি ব্যাকটেরিয়া সরাসরি মেনিনজেসে প্রবেশ করলেও এটি ঘটতে পারে। এটি কান বা সাইনাস সংক্রমণ, মাথার খুলি ফাটল, বা, খুব কমই, কিছু অস্ত্রোপচারের পরে সৃষ্ট হতে পারে।

যাদের কারণে ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস হতে পারে-

* স্ট্রেপ্টোকক্কাস নিউমোনিয়া: ত্রিশ থেকে চল্লিশ শতাংশ

* নাইসেরিয়া মেনিনজাইটিস: পনেরো থেকে চল্লিশ শতাংশ

* হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা:  দুই থেকে সাত শতাংশ

* লিস্টেরিয়া মনোসাইটোজেনস (লিস্টেরিয়া): এক থেকে দুই শতাংশ

ব্যাকটেরিয়ার বিভিন্ন প্রজাতি অ্যাকিউট ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিস সৃষ্টি করতে পারে, সাধারণতঃ

* স্ট্রেপ্টোকক্কাস নিউমোনি (নিউমোকোকাস) – এই ব্যাকটেরিয়াটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নবজাতক, ছোট শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিসের সবচেয়ে সাধারণ কারণ। এটি সাধারণত নিউমোনিয়া বা কান বা সাইনাসের সংক্রমণ ঘটায়। একটি ভ্যাকসিন এই সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

* নেইসেরিয়া মেনিনজিটিডিস (মেনিনগোকক্কাস) – এই ব্যাকটেরিয়া ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিসের আরেকটি প্রধান কারণ। এই ব্যাকটেরিয়াগুলো সাধারণত উপরের শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ ঘটায় কিন্তু রক্তপ্রবাহে প্রবেশ করলে মেনিনগোকক্কাস মেনিনজাইটিস হতে পারে। এটি একটি অত্যন্ত সংক্রামক সংক্রমণ, যা প্রধানত কিশোর এবং তরুণ প্রাপ্তবয়স্কদের প্রভাবিত করে। একটি ভ্যাকসিন এই ভয়ানক সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

* হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা – হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা টাইপ বি ব্যাকটেরিয়া একসময় শিশুদের ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিসের প্রধান কারণ ছিল। কিন্তু নতুন ভ্যাকসিন এই ধরনের মেনিনজাইটিসের ক্ষেত্রে সংক্রমণ অনেকাংশে কমিয়ে দিয়েছে।

* লিস্টেরিয়া মোনোসাইটোজিনস- এই ব্যাকটেরিয়াগুলো পাস্তুরিত পনির, হট ডগ এবং মধ্যাহ্নভোজনের মাংসে পাওয়া যায়। গর্ভবতী মহিলা, নবজাতক, বয়স্ক প্রাপ্তবয়স্ক এবং দুর্বল ইমিউন সিস্টেমের লোকেরা এর প্রতি সবচেয়ে বেশি সংবেদনশীল। লিস্টেরিয়া প্ল্যাসেন্টাল বাধা অতিক্রম করতে পারে এবং গর্ভাবস্থার শেষের দিকে সংক্রমণ শিশুর জন্য মারাত্মক হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ স্পাইনাল কর্ড ইনজুরি কী, এর প্রকারভেদ এবং ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা

ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিসের লক্ষণ

ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিসের লক্ষণ হঠাৎ করেই বিকাশ লাভ করে। এদের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:

* পরিবর্তিত মানসিক অবস্থা

* বমি বমি ভাব

* বমি হওয়া

* আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা

* বিরক্তি, মাথাব্যথা এবং জ্বর

* ঠান্ডাভাব অনুভূত হওয়া

* শক্ত ঘাড়

* ত্বকে বেগুনি অংশের প্রকাশ যা দেখতে ক্ষতের মতো

* তন্দ্রা

* অলসতা ইত্যাদি।

ভাইরাল-মেনিনজাইটিসের-লক্ষণ-ও-উপসর্গ

ভাইরাল মেনিনজাইটিস

ভাইরাল মেনিনজাইটিস সাধারণত হালকা হয় এবং প্রায়শই নিজেই ঠিক হয়ে যায়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এন্টারোভাইরাস নামে পরিচিত একদল ভাইরাস দ্বারা এটি সৃষ্ট হয়, যা গ্রীষ্মের শেষের দিকে এবং শরতের শুরুতে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।

ভাইরাল মেনিনজাইটিস এর কার্যকারক এজেন্ট বা কাদের কারণে হয়ে থাকে:

১. এন্টারোভাইরাস

২. অ্যাডেনোভাইরাস

৩. আরবোভাইরাস

৪. হামের ভাইরাস

৫. ভ্যারিসেলা

৬. হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস

৭. এইচআইভি

৮. ওয়েস্ট নীল ভাইরাস

৯. মাম্পস ভাইরাস ইত্যাদি

আরও পড়ুনঃ বেলস পালসি কী, কেন হয় এবং এতে ফিজিওথেরাপির ভূমিকা

ভাইরাল মেনিনজাইটিসের লক্ষণ ও উপসর্গ

শিশুদের ক্ষেত্রে ভাইরাল মেনিনজাইটিস এর লক্ষণ ও উপসর্গ এর মধ্যে থাকতে পারে:

* ক্ষুধা কমে যাওয়া

* বিরক্তি

* তন্দ্রা

* অলসতা

* জ্বর ইত্যাদি।

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে, ভাইরাল মেনিনজাইটিস থেকে হতে পারে:

* মাথাব্যথা

* জ্বর

* শক্ত ঘাড়

* খিঁচুনি

* উজ্জ্বল আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা

* তন্দ্রা

* অলসতা

* বমি বমি ভাব এবং বমি

* ক্ষুধা কমে যাওয়া ইত্যাদি

ক্রনিক মেনিনজাইটিস

ধীরে ধীরে বর্ধনশীল জীব (যেমন ছত্রাক এবং মাইকোব্যাকটেরিয়াম টিউবারকুলোসিস) যা মস্তিষ্কের চারপাশের ঝিল্লি এবং তরল আক্রমণ করে ক্রনিক মেনিনজাইটিস সৃষ্টি করে। ক্রনিক মেনিনজাইটিস দুই সপ্তাহ বা তারও বেশি সময় ধরে বিকাশ লাভ করে। ক্রনিক মেনিনজাইটিসের লক্ষণগুলোর মধ্যে আছে – মাথাব্যথা, জ্বর, বমি এবং মানসিক মেঘলা – অ্যাকিউট মেনিনজাইটিসের উপসর্গের মতো।

ফাংগাল বা ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিস

ফাংগাল বা ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিস তুলনামূলকভাবে অস্বাভাবিক এবং ক্রনিক (দীর্ঘস্থায়ী) মেনিনজাইটিস সৃষ্টি করে। এটি অ্যাকিউট ব্যাকটেরিয়াল মেনিনজাইটিসকে অনুকরণ করতে পারে। ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিস ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে সংক্রামক নয়। ক্রিপ্টোকক্কাল মেনিনজাইটিস একটি সাধারণ ছত্রাকের রোগ, যা এইডসের মতো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার ঘাটতিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রভাবিত করে। এতে অ্যান্টিফাঙ্গাল ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করা না হলে এটি জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

আরও পড়ুনঃ স্পন্ডাইলোসিস কী, এর প্রকারভেদ ও চিকিৎসা

ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিস সম্পর্কিত সবচেয়ে সাধারণ ছত্রাকগুলোর মধ্যে রয়েছে:

১. ক্রিপ্টোকক্কাস প্রজাতির ছত্রাক

* যা ময়লা বা মাটি থেকে শ্বাস নেওয়া হয় এবং

* যা পাখির বিষ্ঠা দ্বারা দূষিত হয়।

২. ব্লাস্টোমাইসিস প্রজাতির ছত্রাক

* মাটিতে পাওয়া যায় এমন অন্য ধরনের ছত্রাক

* বিশেষ করে মধ্য-পশ্চিম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে

৩. হিস্টোপ্লাজমা প্রজাতির ফাংগাস

বাদুড় এবং পাখির বিষ্ঠা দ্বারা ব্যাপকভাবে দূষিত হয়েছে এমন পরিবেশে পাওয়া যায়

৪. কক্সিডিওইডিস প্রজাতির ছত্রাক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পশ্চিম এবং দক্ষিণ ও মধ্য আমেরিকার নির্দিষ্ট এলাকায় মাটিতে পাওয়া যায়।

৫. ক্যান্ডিডা (ইস্ট)

৬. অ্যাসপারগিলাস ইত্যাদি।

ছত্রাকজনিত বা ফাংগাল মেনিনজাইটিসের লক্ষণ ও উপসর্গ:

ছত্রাকজনিত মেনিনজাইটিসের লক্ষণ ও উপসর্গ এই সংক্রমণের অন্যান্য ধরণের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। এতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে:

১. বমি বমি ভাব

২. বমি করা

৩. আলোর প্রতি সংবেদনশীলতা

৪. জ্বর

৫. মাথাব্যথা

৬. বিভ্রান্তি ইত্যাদি

পরজীবী বা প্যারাসাইটিক মেনিনজাইটিস:

এই ধরনের মেনিনজাইটিস ভাইরাল বা ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিসের চেয়ে কম হয়ে থাকে, এবং এটি পরজীবী দ্বারা সৃষ্ট হয় যা ময়লা, মল এবং কিছু প্রাণী ও খাদ্য যেমন শামুক, কাঁচা মাছ, হাঁস-মুরগি উৎপাদনে পাওয়া যায়।

অ্যামেবিক মেনিনজাইটিস:

প্রাইমারি অ্যামেবিক মেনিনগোএনসেফালাইটিস (পিএএম) নেগ্লেরিয়া ফাউলেরি দ্বারা সৃষ্ট মস্তিষ্কের একটি বিরল এবং বিধ্বংসী সংক্রমণ। নেগ্লেরিয়া ফাউলেরি হল একটি মুক্ত-জীবিত, মাইক্রোস্কোপিক অ্যামিবা যা উষ্ণ জলে এবং মাটিতে বাস করে।

নন ইনফেকশাস বা অসংক্রামক মেনিনজাইটিস:

অসংক্রামক মেনিনজাইটিস কোন সংক্রমণ নয়। পরিবর্তে, এটি এক ধরনের মেনিনজাইটিস যা অন্যান্য রোগ বা চিকিৎসার কারণে হয়। এর মধ্যে রয়েছে:

* লুপাস

* মাথায় আঘাত

* মাথার অপারেশন

* ক্যান্সার

* সুনির্দিষ্ট কিছু ওষুধ ইত্যাদি।

মেনিনজাইটিস রোগের গতিবিধি বা আরোগ্য সম্ভাবনা কেমন?

মেনিনজাইটিসের গতিবিধি রোগের তীব্রতা এবং কারণের উপর নির্ভর করে।

* গুরুতর ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিস বা অসুস্থতার খুব দ্রুত সূচনার ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার ৯০% পর্যন্ত হতে পারে। যদি সেই ব্যক্তি সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে বেঁচে থাকে, তাও তার দীর্ঘমেয়াদী বেশ কিছু অক্ষমতা বা প্রতিবন্ধীতা হতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে বধিরতা, খিঁচুনি, পক্ষাঘাত, অন্ধত্ব, বা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্ষতি।

* ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিসের কম গুরুতর প্রকরণের ক্ষেত্রে, মৃত্যুহার এখনো ২৫% এর কাছাকাছি হতে পারে। দীর্ঘমেয়াদী অক্ষমতা সম্ভব। ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তি এবং পুনর্বাসনের দীর্ঘ সময়ের প্রয়োজন হতে পারে।

* দ্রুত চিকিৎসা (অর্থাৎ, অ্যান্টিবায়োটিক) ব্যাকটেরিয়াজনিত মেনিনজাইটিস থেকে মৃত্যুর ঝুঁকি ১৫ শতাংশেরও কম করে।

* ভাইরাল মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে সাত থেকে ১০ দিনের মধ্যে সম্পূর্ণ পুনরুদ্ধার হতে পারে এবং ১ শতাংশেরও কম ক্ষেত্রে তা মারাত্মক।

তথ্যসূত্রঃ

Follow me

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This field is required.

This field is required.

Call Now