ফ্রোজেন শোল্ডার ও ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা

ফ্রোজেন শোল্ডার বা অ্যাডহেসিভ ক্যাপসুলাইটিস হল এক ধরনের কাঁধের সমস্যা যেখানে কাঁধের জয়েন্ট ক্যাপসুল ঘন ও শক্ত হয়ে যায়, যার ফলে কাঁধের নড়াচড়া কমে যায় এবং ব্যথা হয়। এই সমস্যার বৈশিষ্ট্য হল এর লক্ষণগুলি ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে, যা সময়ের সাথে সাথে ভালো হয়ে যায়, তবে পুরো প্রক্রিয়াটি প্রায় ১ থেকে ৩ বছর সময় নিতে পারে।

ফ্রোজেন শোল্ডার

ফ্রোজেন শোল্ডার সাধারণত প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে দেখা যায়, বিশেষ করে ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সের মানুষদের মধ্যে, এবং মহিলাদের মধ্যে পুরুষদের তুলনায় এটি হবার প্রবণতা বেশি। মানুষের কাঁধের জয়েন্টটি মূলত তিনটি হাড়ের সমন্বয়ে গঠিত: উপরের বাহু (হিউমারাস), কাঁধের ব্লেড (স্ক্যাপুলা) এবং কলারবোন (ক্ল্যাভিকল)। এই জয়েন্ট কাঁধের ক্যাপসুল দ্বারা ঘেরা থাকে, যা সাধারণত বল ও সকেটের স্থানটি আবৃত করে রাখে এবং সঠিক চলাচল নিশ্চিত করে। কিন্তু যখন এই ক্যাপসুল ঘন ও শক্ত হয়ে যায়, তখন কাঁধের নড়াচড়া কমে যায় এবং ব্যথা সৃষ্টি হয়। ফ্রোজেন শোল্ডারের ক্ষেত্রে সাইনোভিয়াল ফ্লুইডের মাত্রা কমে যাওয়ায় জয়েন্টের লুব্রিকেশন হ্রাস পায় এবং কাঁধ আরও শক্ত হয়ে যায়।

আরও পড়ুনঃ স্ট্রোক কি এবং এর প্রতিকার

ফ্রোজেন শোল্ডারের লক্ষণ

ফ্রোজেন শোল্ডারের লক্ষণগুলি ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায় এবং সময়ের সাথে আরও খারাপ হয়, তবে অবশেষে এই লক্ষণগুলি হ্রাস পেতে থাকে এবং অনেক ক্ষেত্রে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। এর মূল লক্ষণগুলি হল:

  • কাঁধের প্রচণ্ড ব্যথা যা ক্রমশ বৃদ্ধি পায়।
  • কাঁধের মোভমেন্ট ক্রমশ কমে যায়, যা দৈনন্দিন কাজে বাধা দেয়।
  • কাঁধে নিস্তেজ এবং শক্তির অভাব অনুভূত হয়।
  • রাতে ব্যথা বৃদ্ধি পায়, যা ঘুমের গভীরতা এবং মানের উপর প্রভাব ফেলে।

ফ্রোজেন শোল্ডার সাধারণত তিনটি ধাপে বিকশিত হয়. ধাপগুলো নিম্নঃরূপঃ

১। ফ্রিজিং স্টেজঃ এই পর্যায়ে কাঁধের যে কোনও নড়াচড়ার কারণে ব্যথা হয়, কখনও কখনও গুরুতর ব্যথা হয় এবং কাঁধের নড়াচড়া করার ক্ষমতা সীমিত হয়ে যায়। এটি ২ থেকে ৯ মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

২। ফ্রোজেন স্টেজঃ এই পর্যায়ে ব্যথা কমে যেতে পারে কিন্তু আপনার দৃঢ়তা আরও খারাপ হয়। কাঁধ সরানো আরও কঠিন হয়ে ওঠে এবং দৈনন্দিন কাজকর্মের মধ্য দিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে ওঠে। এটি ৪ থেকে ১২ মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

৩।থয়িং স্টেজঃ এই পর্যায়ে কাঁধের নড়াচড়া করার ক্ষমতা উন্নত হতে শুরু করে। এটি ৫ থেকে ২৬ মাস পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

ফ্রোজেন শোল্ডারের কারনঃ

ফ্রোজেন শোল্ডারের কারণ সম্পূর্ণরূপে স্পষ্ট নয়, তবে দীর্ঘকালীন শোল্ডার জয়েন্টের অচলতার ফলে এর উদ্ভব দেখা যায়, যা প্রায়শই আঘাত বা অপারেশনের পর ঘটে।

ফ্রোজেন শোল্ডারের ঝুঁকির কারণঃ

  • বয়স: সাধারণত ৪০ থেকে ৬০ বছর বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে এটি বেশি ঘটে।
  • লিঙ্গ: মহিলাদের মধ্যে এর প্রকোপ পুরুষদের চেয়ে বেশি।
  • সাম্প্রতিক ট্রমা: আঘাত বা অপারেশনের পর এর সম্ভাবনা বেড়ে যায়।
  • ডায়াবেটিস: ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে ফ্রোজেন শোল্ডার বেশি দেখা যায়।
  • থাইরয়েডের সমস্যা: হাইপারথাইরয়েডিজম ও হাইপোথাইরয়েডিজম উভয় ক্ষেত্রেই ঝুঁকি থাকতে পারে।
  • হৃদরোগ ও পারকিনসন রোগ: এই রোগগুলিও ঝুঁকি বৃদ্ধি করে।

ফ্রোজেন শোল্ডারের রোগ নির্ণয়

ফ্রোজেন শোল্ডার নির্ণয়ের জন্য, ডাক্তার শারীরিক পরীক্ষার পাশাপাশি এক্স-রে বা এমআরআই টেস্ট করার পরামর্শ দিতে পারেন যাতে কাঁধের জয়েন্টের ভিতরের গঠন ও ক্যাপসুলের অবস্থা স্পষ্ট বোঝা যায়। এই ইমেজিং টেস্টগুলির মাধ্যমে কাঁধের অন্যান্য সম্ভাব্য সমস্যা বা আঘাত থাকলেও তা নির্ণয় করা যায়।

 আরও পড়ুনঃ নিউরোপ্যাথি কি, নিউরোপ্যাথির লক্ষণ এবং চিকিৎসা

ফ্রোজেন শোল্ডারের চিকিৎসা

১. ওভারদ্য কাউন্টার ব্যথানাশক ওষুধঃ ননস্টেরয়েডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগ (NSAID) যেমন অ্যাসপিরিন বা আইবুপ্রোফেন কাঁধের ব্যথা ও প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। এগুলো কার্যকরী না হলে, চিকিৎসক আরও শক্তিশালী ব্যথানাশক ওষুধের পরামর্শ দিতে পারেন।

২. উন্নত চিকিৎসা বিকল্পঃ যদি লক্ষণগুলি গুরুতর হয় অথবা সময়ের সাথে কোনো উন্নতি না হয়, ডাক্তার আরও বিশেষায়িত চিকিৎসা প্রদানের পরামর্শ দিতে পারেন, যেমন:

  • সার্জারি: অত্যন্ত গুরুতর ক্ষেত্রে, সার্জারি করা লাগতে পারে যা কাঁধের জয়েন্ট ক্যাপসুল শিথিল করে গতিশীলতা উন্নত করতে সাহায্য করে।
  • আর্থ্রোস্কোপি: একটি মিনিমালি ইনভেসিভ পদ্ধতি যেখানে ক্ষুদ্র ইন্সট্রুমেন্ট এবং ক্যামেরা ব্যবহার করে কাঁধের জয়েন্টের ভেতরে দেখা হয় এবং চিকিৎসা করা হয়।
  • ফিজিওথেরাপি: পেশী ও জয়েন্ট মজবুত করা এবং গতিশীলতা বাড়ানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন এক্সারসাইজ ও থেরাপিগুলি অনুসরণ করা হয়।
ফ্রোজেন শোল্ডার ও ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা

ফ্রোজেন শোল্ডারের ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার মধ্যে রয়েছে-

সাধারন বা কনজারভেটিভ চিকিৎসাঃ

  • রোগীকে তার রোগ সম্পর্কে জানানো বা শিক্ষা দেওয়া।
  • ঔষধঃ মুখে সেবন যোগ্য –এন এস এ আই ডি (NSAIDs) এবং ইন্ট্রা-আর্টিকুলার গ্লিউকো-করটিকয়েডস (Intra-Artricular Glucocorticoids).
  • ফিজিওথেরাপি

স্টেজ বা পর্যায় ভিত্তিক চিকিৎসাঃ

  • ফ্রিজিং স্টেজ বা পর্যায়ঃ
    • জেন্টল স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ বা আরামদয়ক পেশি প্রসারিত ব্যায়াম
    • মোডালিটিসঃ হট/ আইচ প্যাক বা গরম/ ঠান্ডা সেক দেওয়া।
  • ফ্রোজেন স্টেজ পর্যায়ঃ
    • জেন্টল স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ বা আরামদয়ক পেশি প্রসারিত ব্যায়াম চলমান থাকবে।
    • শক্তি বৃদ্ধিকরন ব্যায়ামঃ আইসোমেট্রিক বা স্ট্যাটিক এক্সারসাইজ
    • মোডালিটিসঃ হট/ আইচ প্যাক বা গরম/ ঠান্ডা সেক দেওয়া।
  • থয়িং স্টেজ পর্যায়ঃ
    • জেন্টল স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ বা আরামদয়ক পেশি প্রসারিত ব্যায়াম চলমান থাকবে।
    • শক্তি বৃদ্ধিকরন ব্যায়ামঃ আইসোমেট্রিক বা স্ট্যাটিক এক্সারসা।
    • রেজিসটেন্সএক্সারসাইজ বা বাধা যুক্ত ব্যায়াম বা ওজন সহ ব্যায়াম।
    • এছাড়াও ম্যানুয়াল থেরাপি, শোল্ডারের ম্যানুপুলেশন, থেরাপিউটিক এক্সারসাইজ, ট্রান্সকিউটেনিয়াস ইলেকট্রিকাল নার্ভ স্টিমুলেশন, গরম বা ঠান্ডা কম্প্রেশন প্যাক, কর্টিকোস্টেরয়েড ইনজেকশন, জয়েন্ট ডিসটেনশন।
    • চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ বা খেলাধুলায় ফিরে যান।

আরও পড়ুনঃ সাইনোসাইটিক হেডেক

হিমায়িত কাঁধ বা ফ্রোজেন শোল্ডার পুনর্বাসন প্রোটোকলঃ

. ২ সপ্তাহঃ

  • শুধুমাত্র আরামের জন্য প্রয়োজন অনুসারে স্লিং বা ঝুলানো অবস্থা থেকে প্রথম ৫-৭ দিন, কনুইয়ের (ROM) রেঞ্জ অব মোশন বা মোভমেন্ট এর জন্য দিনে ৫-৭ বার হাত বের করে নড়াচড়া বা মোভমেন্ট গুলো করতে হবে।
  • অঙ্গবিন্যাস (Postural) শিক্ষা এবং অঙ্গবিন্যাস (Postural) ব্যায়াম
  • সারা দিন পাঞ্চিং/ স্পঞ্জি/ নরম বলকে চাপ দেয়া বা হাতের মুঠোয় পুরে নেয়া বা খোলা এই ব্যায়ামটি করা। 
  • প্রতি দুই ঘণ্টা পর পর ১৫-২০ মিনিটের জন্য প্রথম ৫-৭ দিন, তারপরে দিনে ৩ বার আইসিং করুন বা বরফ দিন।
  • CPM (কন্টিনিউয়াস প্যাসিভ মোশন) মেশিনে বা ম্যানুয়ালি ফিজিওথেরাপিস্ট এর মাধ্যমে বা ফিজিওথেরাপিস্টের শিখানো নিয়মে ১-৪ সপ্তাহের জন্য, প্রতিদিন ৪-৬ ঘন্টা হাতের নাড়াচাড়া বা মোভমেন্ট করুন।
  • পেরিস্ক্যাপুলার পেশী, সার্ভিকাল মেরুদণ্ড এবং রোটেটর কাফের উপর দৃষ্টি দিন, ফিজিওথেরাপিস্টের মাধ্যমে সফট টিস্যু মোবিলাইজেশন নিন।
  • স্ক্যাপুলার মোবিলাইজেশন নিন ফিজিওথেরাপিস্টের মাধ্যমে।
  • প্যাসিভ এবং অ্যাক্টিভ অ্যাসিস্টেড (ROM বা রেঞ্জ অব মোশন) ম্যানুয়ালি এবং বাড়িতে পুলি ব্যবহার করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিরক্তি ছাড়াই পূর্ণ গতিতে মোভমেন্ট আনা যায়।
  • কার্ডিওভাসকুলার প্রশিক্ষণ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারেন।
  • কোর স্ট্যাবিলাইজেশন বা পেটের পেশির শক্তি বৃদ্ধি  করন প্রক্রিয়া শুরু করুন।

. ৪ সপ্তাহঃ

  • হাতের গতির বা মোভমেন্টের সম্পূর্ণ প্যাসিভ পরিসীমা ২-৪ সপ্তাহের মধ্যে অর্জন করা উচিত
  • নির্দেশিত নিয়মে স্ক্যাপুলার এবং গ্লেনোহুমেরাল জয়েন্ট এর  মোবিলাইজেশন
  • রোটেটর কাফ পুনরায় প্রশিক্ষণ এবং শক্তিশালীকরণ শুরু করুন, সঠিক বায়োমেকানিক্স পুনরুদ্ধারের উপর ফোকাস বা কাজ করুন।
  • দ্বিপাক্ষিক বা দুই হাতের কার্যকলাপ এক সাথে করুন এবং হাতের পাশাপাশি দুই পায়ের কার্যকলাপকে ও একীভূত যাতে সম্পূর্ণ শরীরের নড়াচড়া বা এক্সারসাইজ করা হয়।
  • ক্রমাগত কার্ডিওভাসকুলার এবং মূল শক্তি বৃদ্ধি প্রশিক্ষণ শুরু করুন।
  • প্রতিদিন ৩ বার আইসিং বা বরফ দেয়া চালিয়ে যান।

. ৮ সপ্তাহঃ

  • নিখুঁত বায়োমেকানিক্সের উপর ভিত্তি করে সঠিক শক্তি বৃদ্ধি করন প্রশিক্ষণ শুরু করুন।
  • হোম বা ঘরে এবং জিম স্বাধীন ভাবে সঠিক ব্যায়াম করার গুনাগুন অর্জন করুন।
  • ঠিক ৬ সপ্তাহ পরে ভাল মেকানিক্সের সাথে ফিজিওথেরাপিস্টের পরামর্শে সাঁতারে ফিরতে হবে।

. ১০ সপ্তাহ:

  • স্বাভাবিক কার্যকলাপ এবং ব্যায়াম করা চলতে থাকবে।
  • প্রতিদিন সোল্ডার এর (ROM) ব্যায়াম, রোটেটর কাফ এর ব্যায়াম এবং কার্ডিওভাসকুলার এর ব্যায়াম চলমান থাকবে।

ফ্রোজেন শোল্ডার প্রতিরোধে করনীয়ঃ

ফ্রোজেন শোল্ডার প্রতিরোধে ফিজিওথেরাপিস্টের চিকিৎসা ওপরামর্শ নিবেন। ফিজিওথেরাপিস্টের শিখানো নিয়মে ব্যায়াম করবেন। ঘন ঘন, মৃদু ব্যায়াম কাঁধের শক্ততা প্রতিরোধ করতে পারে।

আর সেগুলো হলো-

  • ক্রসওভার আর্ম স্ট্রেচ
  • পেন্ডুলাম স্ট্রেচ
  • তোয়ালে স্ট্রেচ

তথ্যসূত্রঃ

    Dr. Sapia Akter
    পরামর্শ নিতে 01877733322